សេចក្តីអធិប្បាយ

বিষয় ৮: পবিত্র আত্মা

[8-15] < যোহন ৮:৩১-৩৬ > আপনি অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করতে পারেন কেবল যখন আপনি সত্য জ্ঞাত হবেন

< যোহন ৮:৩১-৩৬ >
“অতএব যে যিল্হদীরা তাঁহাতে বিশ্বাস করিল, তাহাদিগকে যীশু কহিলেন, তোমরা যদি আমার বাক্যে স্থির থাক, তাহা হইলে সত্যই তোমরা আমার শিষ্য; আর তোমরা সেই সত্য জানিবে, এবং সেই তোমরদিগকে স্বাধীন করিবে। তাহার তাঁহাকে উত্তর করিল, আমরা অব্রাহামের বংশ, কখন ও কাহার ওদাস হই নাই; আপনি কেমন করিয়া বলিতেছেন যে, তোমদিগকে স্বাধীন করা যাইবে? যীশু তাহাদিগকে উত্তর করিলেন, সত্য সত্য, আমি তোমদিগকে বলিতেছি, যে কেহ পাপচরণ করে, সে পাপের দাস। আর দাস বাটিতে চিরকাল থাকে না; পুত্র চিরলে থাকেন । অতএব পুত্র যদি তোমদিগকে স্বাধীন করেন, তবে তোমরা প্রকৃত রুপে স্বধীন হইবে।”
 
 
অন্তরে বাসকারী পবিত্র
আত্মা গ্রহণের নিমিও আমাদের
কি করনীয়আছে?
আমরা অবশ্যই জল ও আত্মার সুন্দর
সুসমাচার বিশ্বাস করব ও
বিশ্বাসে যাপন করব
 
আপনি কি জানেন এই সত্য কি? যীশু বলেন,“আমিই সত্য”(যোহন ১৪:৬)। সুতরাং যীশুকে জানতে হলে সত্য জানতে হবে।সুন্দর সুসমাচারে আপনার বিশ্বাসের মাধ্যমে আপনি কি অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মাকে ধন্যবাদ দেন? আপনি স্বীকার করবেন যে যীশু বাপ্তিস্ম ও তাঁর ক্রুশীয় রক্ত সুন্দর সুসমাচার এবং ইহাতে বিশ্বাসের শুনাদির প্রতি স্বরূপ বস্তু।
 লোকেরা আজকাল “ নূতন জন্ম ” শব্দটা বেশী জোর দিয়ে বারংবার ব্যবহার করছে। লোকদের নূতন জন্ম হওয়া আবশ্যক রাজনীতির ও নূতন হওয়া আবশ্যক। ধর্ম্মের ও নূতন জন্ম হওয়া আবশ্যক তারা “উন্নতি করণের” জন্য প্রতি শব্দ ব্যবহার কর। যাহা হউক, নূতন মাংসিক স্বভাবের উন্নতিকরণের অর্থ প্রকাশ করে না।নূতন জন্ম জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচার শ্রবণ ও বিশ্বাস দ্বারা অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করা।
 
 
সত্যের বাক্য কি যাহা আমাদিগকে নূতন হতে উৎসাহিত করে ?
  
কেন মানুষের নূতন জন্ম হওয়া আবশ্যক ? ঈশ্বরের সন্তান রূপে নূতন জন্ম প্রাপ্ত হয়ে মানুষ অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্ম গ্রহণের ক্ষেত্রে অসম্পূর্ণ। আমরা অনেক লোককে দেকতে পাই যারা। যীশুতে বিশ্বাস করে অথচ অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা নেই। নীকদিম ছিলেন যীহুদীদের একজন ব্যবস্থা বেত্তা। নিকদীম, যিনি যোহন ৩ অধ্যায়ে যিহুদীদের একজন নেতা হিসাবে আর্বিভুত হয়েছেন, যিনি ঈশ্বর প্রদত্ত ব্যবস্থাকে রক্ষা করতে চেষ্টা করতেন। যাহা হউক, তিনি লোকদের একজন ধৰ্ম্মীয় নেতা হিসাবে কাজ করতেন, অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা সম্পর্কে অসচেতন ছিলেন।
 অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করি, আমরা জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচার অবশ্যই বিশ্বাস করব এবং বিশ্বাসে জীবন করব । মানুষ অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্ম গ্রহণ করতে পারি কেবল যখন সে জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচারের সত্যের বাক্যে বিশ্বাস করে। যীশু বলেন, “আমি পার্থিব বিষয়ের কথা কহিলে তোমরা যদি বিশ্বাস না কর, তবে স্বর্গীয় বিষয়ের কথা বললে, কেমন করিয়া বিশ্বাস করিবে?”( যোহন ৩:১২)।
 জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচার নিম্নরূপ । আমাদের প্রভু এই জগতে জন্ম গ্রহণ করেছেন। ৩০ বছর বয়স যোহনের দ্ধারা বাপ্তাইজিত হলেন, তিন বছর পরে ক্রুশে মৃত্যু বরণ করলেন, পুনরুনথিত হলেন এবং এরূপে আমাদের সমস্ত পাপ থেকে আমাদিগকে মক্তু করলেন তিনি তাদের ত্রাণকর্তা হলেন যারা বিশ্বাস করে যে যীশু যোহনের দ্ধারা বাপ্তাইজিত হলেন এবং মৃত্যু থেকে পুনরায় উঠলেন। তিনি পাপের ক্ষমা মঞ্জুর করলেন এবং যারা এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করে তাদের অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা দিলেন।
 যাদের অন্তরে এখনো পাপ আছে তাদের যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর রক্তে বিশ্বাস দ্বারা পাপ থেকে অবশ্যই ক্ষমা পেতে হবে।পাপ প্রত্রিয়া থেকে ঈশ্বরের সাক্ষাতে মানুষ দয়া পেতে পারে না ফলে যীশুকে তার ত্রাণকর্তা রূপে গ্রহণ করে রক্ষা পেতে হবে জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচারের মধ্যে দিয়ে যীশু জগতের সমস্ত পাপ ধৌত করেছেন । সমস্ত পাপী জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচার শ্রবণ ও বিশ্বাস করে রক্ষা পেতে পারি । যারা এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করে তারা অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা দ্বারা আশীর্বাদ পেয়ে থাকে ।
“ আর মোশি যেমন প্রান্তরে সেই সম্পর্কে উচ্চে উঠাইয়াছিলেন। সেই রূপে মনুষ্য পুত্রকে উচ্চীকৃত হইতে হইবে?” (যোহন ৩:১৪) পুরাতন নিয়মে ইস্রায়েলীয়দের পাপ করার কারণে বিষধর সর্পের কামড়ে বেপরোয়া ভাবে মারা যাচ্ছিল , তখন উচ্চে স্থাপিত পিতলের সর্পের দিকে দৃষ্টিপাত করে তাদের অনেকেই বেঁচে গিয়েছিল।
 তদ্রুপ, আমরা ও অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা পেয়ে থাকি। যারা সুন্দর সুসমাচার বিশ্বাস করে যীশু তাদেরকে অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা দিয়ে থাকেন । শয়তান জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচার জ্ঞাত হতে বাধা দিয়ে থাকে এবং সত্যের আত্মা গ্রহণে আমাদিগকে আটকাতে চেষ্টা করে। ঈশ্বর পাপের ক্ষমার মাধ্যমে সেই আমাদিগকে আশীর্বাদ করেন এবং যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর রক্তের সুসমাচার বিশ্বাসের মাধ্যমে আমাদিগকে অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা দেন।
 আপনি অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করতে পারেন যদি আপনি এই সুন্দর সুসমাচার বিশ্বাস করেন। আপনি কি ঈশ্বরের সাক্ষাতে এই সুন্দর সুসমাচারকে সত্য বলে স্বীকার করেছেন? আপনি কি বিশ্বাস করেন যে এই সত্য সুসমাচারে বিশ্বাস দ্বারা অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণে সমর্থ ?
 ঈশ্বর আমাদিগকে এই সত্য জানাতে বলেছেন যা আমাদিগকে সমস্ত পাপ থেকে রক্ষা করে। “আর তোমরা সেই সত্য জানিবে, এবং সেই সত্য তোমাদিগকে স্বাধীন করিবে?” (যোহন ৮:৩২)। আপনি কি এই সুন্দর সুসমাচারের সত্য জানেন যা অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা দ্বারা আমাদিগকে পবিত্র করে ? যদি আপনি এই সুসমাচার গ্রহন করেন, আপনি নিশ্চিতভাবেই অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করতে পারবেন।