Sermões

বিষয় ৮: পবিত্র আত্মা

[8-18] < যিহোশূয় ৪:২৩ > সত্য যা বিশ্বাসীদেরকে অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণে চালিত করে

< যিহোশূয় ৪:২৩ > 
 “কারণ তোমাদের ঈশ্বর সদাপ্রভু সুফসাগরের প্রতি যেমন করিয়াছিলেন, আমাদের পার না হওয়া পর্যন্ত যেমন তাহা শুষ্ক করিয়াছিলেন, তেমনি তোমাদের পার না হওয়া পর্যন্ত তোমাদের ঈশর সদাপ্রভু তোমাদের সম্মুখে যর্দ্দনের জল শুষ্ক করিলেন।”
 
 
যর্দ্দন নদীর ঘটনা আমাদিগকে
কি শিক্ষা দেয়?
ইহা আমাদিগকে শিক্ষা দেয় যে যীশু খ্রীষ্ট
মানবজাতি থেকে পাপ ও পরবর্তী বিচার
দ্বারা সম্পূর্ণ বিবেচনা না করে মৃত্যুর
কারণ হয়েছিলেন।
 
 আমি এখন সত্যের সুন্দর সুসমাচার সম্পর্কে জানতে পছন্দ করি যা আমাদিগকে অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণে চালিত করে। মোশির মৃত্যুর পর ইস্রায়েলের নেতা হিসাবে ঈশ্বর যিহোশূয়কে নিয়োগ করেন। মোশি পুরাতন নিয়মে ব্যবস্থার প্রতিনিধি ছিলেন, যদি মোশি ইস্রায়েল জাতিকে নিয়ে যর্দ্দন পর হতেন এবং কনানে প্রবশ করতেন, তাহলে লোকদের নেতৃত্ব দিতে যিহোশূয়ের প্রয়োজন হত না। যাহাহউক, ঈশ্বর কনান দেশের সম্মুখ পর্যন্ত মোশিকে আনলেন এবং এতে প্রবেশ করতে তাকে বাঁধা দিলেন। 
 
 
আমাদের ঈশ্বর আমাদিগকে মোশি ও যিহোশূয়কে দিয়েছেন
  
মোশি পুরাতন নিময়ে ব্যবস্থার প্রতিনিধি, ইস্রায়েল জাতিকে কনানে নিয়ে যেতে পারলেন না। যদিও তিনি ব্যবস্থার দ্ধারা চালিত হয়েছিলেন, ইহা আমাদের পরিত্রাণের নিমিও ঈশ্বরের পরিকল্পনার বিরুদ্ধে ছিল। ঈশ্বরের ব্যবহার সাক্ষাতে কেহই তার পাপ থেকে মুক্ত হতে পারে না কারণ কেহই ব্যবস্থা পালন করতে পারে না কারণ ব্যবস্থা কেবলমাত্র পাপের জ্ঞান জন্মায় ( রোমীয় ৩:২০ )।
 ফলতঃ পাপের জ্ঞান জন্মাতে ঈশ্বর কেন মানুষকে ব্যবস্থা দিলেন, ব্যবস্থা খ্রীষ্টের কাছে আনবার জন্য তার শিক্ষক হলেন যেন আমরা বিশ্বাস হেতু ধার্মিক গণিত হই ( গালাতীয় ৩:২৪ )। যেহেতু যীশুকে অন্বেষন করতে পদদর্শক ছাড়া ব্যবস্থার বেশি কিছুই করে নাই, লোকদের যীশুকে প্রয়োজন এবং এই কারণে যীশু এই জগতে এসেছিলেন। ইস্রায়েল জাতিকে যর্দ্দন নদী পার করে কনানে প্রবেশ করতে যিহোশূয়কে কি আদেশ প্রদান করেছিলেন।
 মোশি মৃত্যুর পর ঈশ্বর তাদের নূতন নেতা যিহোশূয়র নেতৃত্বে কনানে প্রবেশ করানোর জন্য চালিত করলেন। যিহোশূয় লোকদের অধ্যক্ষদের আদেশ করলেন বললেন, “তোমরা শিবিরের মধ্য দিয়া যাও, লোকদিগকে এই কথা বল, তোমরা আপনাদের জন্য পাথেয় সামগ্রী প্রস্তুত কর; কেননা তোমাদের ঈশ্বর সদাপ্রভু অধিকারার্থে তোমাদিগকে যে দেশ দিতেছেন, সেই দেশে প্রবেশ করিয়া তাহা অধিকার করিবার জন্য তিন দিনের মধ্যে তোমাদিগকে এই যর্দ্দন পার হইয়া যাইতে হইবে” ( যিহোশূয় ১:১১ )। মোশির মাধ্যমে যখন ইহা অসম্ভব প্রমাণিত হল তখন ঈশ্বর যিহোশূয়কে কনানে প্রবেশ করতে আদেশ করলেন। ঈশ্বর যিহোশূয়কে আদেশ করলেন, বললেন, “তুমি নিয়ম সিন্দুক বাহক যাজকগণকে এই আজ্ঞা কর, যর্দ্দনের জলের ধারে উপস্থিত হইলে তোমরা যর্দ্দনে দাঁড়াইয়া থাকিবে। তখন যিহোশূয় ইস্রায়েল সন্তানগণকে কহিলেন, তোমরা এখানে আইস, তোমাদের ঈশ্বর সদাপ্রভুর বাক্য শুন। আর যিহোশূয় কহিলেন, জীবন্ত ঈশ্বর যে তোমাদের মধ্যে বিদ্যমান এবং কনানীয়, হিব্বীয়, হিত্তীয়, পরিত্তীয়, গির্গশীয়, ইমোবীয় ও যিবুষীয়দিগকে তোমাদের সম্মুখ হইতে নিশ্চয় অধিকারচ্যুত করিবেন, তাহা তোমরা ইহা দ্ধারা জানিতে পারিবে”
 ( যিহোশূয় ৩:৮-১০ )।
 মোশির মৃত্যুর পর, ঈশ্বর ইস্রায়েলের নেতা যিহোশূয়কে নিয়োগ করলেন এবং ইস্রায়েল জাতিকে নিয়ে কনানে প্রবেশ করাতে তাকে আদেশ দিলেন। যিহোশুয় নামের অর্থ “ত্রাণকর্তা” সমার্থক শব্দ “ যীশু” অথবা “ হোশেয়।” ঈশ্বরের একজন দাস যিহোশুয়া নিয়াম সিন্দুকবাহী যাজকদের আদেশ করলেন এবং লোকদের নেতৃত্ব দিয়ে যর্দ্দন নদী পার হলেন। যখন নিয়ম সিন্দুর বাহী যাজন, গণ জলের। মধ্যে তাদের পা ডুবালেন ফসল কাটার সময় যর্দ্দনের জল নদীর তীর ছাপিয়ে প্রবাহিত হয় তখন উপর থেকে আসা স্রোত ধারা থমকে দাঁড়াল এবং আদম নগরের কাছে এক রাশি হয়ে উঠল, ঐ নগর জারেতানের পাশে সুতরাং যে জল অরাবা তল ভুমির সমুদ্রে অর্থাৎ লবন সমুদ্রে নেমে যাচ্ছিল তা সম্পূণ ছিন্ন হল এবং লোকেরা যিরিহোর সম্মুখেই পার হল ( যিহোশূয় ৩:১৫-১৬ )।
 এই ঘটানর মধ্যে দিয়ে ঈশ্বর আমাদিগকে শিক্ষা দিচ্ছেন যে মানব জাতির পাপ ও বিচার পরবর্তী মৃত্যু সম্পূর্ণই বিবেচনা কহিভূত ছিল। যীশু খ্রীষ্ট যখন যোহনের দ্বারা বাপ্তাইজিত হলেন ও ক্রুশারোপিত হলেন তখন তিনি মানবজাতির সমস্ত পাপ তুলে নিলেন। এই ভাবে, তিনি মানবজাতিকে তাদের পাপ থেকে রক্ষার জন্য তাদেরকে নেতৃত্ব দিয়ে কনানে প্রবেশ করাবেন, যেখানে স্বর্গরাজ্য অবস্থিত।
 
 
যর্দ্দন নদী সেই স্থান যেখানে মানবজাতি পবিত্ৰীকৃত হয়েছিল
 
যর্দ্দন নদী পারাপারের পারিপার্শ্বিক ঐতিহাসিক ঘটনা,পুরাতন ও নূতন নিয়মে সংরক্ষিত আছে, মানব জাতির পাপ থেকে উত্থিত অভিশাপ ও বিচার থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার পথে চালিত করা বিস্ময়কার গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। যর্দ্দন নদীকে মৃত্যুর নদী হিসাবে নির্দেশ করা হয়েছিল এবং মৃত সাগর তথা নদীর শেষ প্রান্ত পর্যন্ত। যর্দ্দন শব্দের অর্থ “একটি নদী যা কেবলমাত্র নীচের দিকে, মৃত্যুর দিকে” প্রবাহিত হয় অথবা নিষ্ঠুর ব্যবহারে মগ্ন করা, সাজোরে নীচে পতিত হওয়া। ইহা পরিষ্কারভাবে মানবজাতির পাপের ইতিহাসের দিকে নির্দেশ করে। এই নদীতে, যীশু তাঁর বাপ্তিস্মের মাধ্যমে পাপের সমস্ত প্রবাহ গ্রহণ করেন না কোন মানুষ শেষ করতে পারে না এবং পরে ক্রুশের ওপর মরলেন এবং মানবজাতির জন্য বিচারিত হলেন।
 আমরা আদম ও হবার বংশধরগণ কোথায়? যেহেতু সমস্ত সৃষ্টি পাপে জন্ম গ্রহণ করেছে, তারা পাপে দায়বদ্ধ, এবং ঐ পাপের বেতনস্বরূপ তারা মৃত্যুর দিকে ধাবিত হয়। সমুদয় মানবজাতির ইতিহাস, সমস্ত সৃষ্টি তাদের জন্ম থেকে ধ্বংসের জন্য শিরোনাম হয়ে আছে। এমন কি তারা তাদের পাপপূর্ণ স্বভাব নিয়ন্ত্রন করতে কঠোর ভাবে চেষ্টা করছে; তারা পারছে না, এবং এ কারণে তারা তাদের পাপের জন্য চূড়ান্ত ভাবে বিচারের দিকে ধাবিত হচ্ছে।
 যাহা হউক, ঈশ্বর পাপ ও বিচারের প্রবাহ ছিন্ন করেছেন। যিহোশূয়কে ইস্রায়েল জাতিকে নিয়ে যর্দ্দন নদী পার হয়ে কনানে প্রবেশ করতে নেতৃত্ব দেন। এই ছিল যিহোশূয়র জন্য ঈশ্বরের ইচ্ছা। এই কাহিনী পাপ থেকে মুক্ত হবার ইঙ্গিত দেয়, আমরা অবশ্যই পাপের দেনা শোধ করব, যা মৃত্যু, এবং উহা এই মূল্যের মাধ্যমে, যেন আমরা আমাদের সমস্ত পাপ থেকে পবিত্রীকৃত হই এবং স্বর্গে যাই। পুরাতন নিয়মে, যখন যাজকগণ নিয়ম সিন্দুক নিয়ে যর্দ্দন নদীতে তাদের পা ডুবালেন তখন নদীর স্রোত বন্দ হয়ে গেল এবং ইহা শুষ্ক ভূমিতে পরিণত হল। ইহা ইস্রায়েল জাতিকে নদী পার অনুমতি দিল। ইহা ছিল পাপের ক্ষমা যা কেবলমাত্র তাদের দেওয়া হয়েছিল যারা সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করেন ইহা ছিল জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচার যা মানব জাতির পাপের দেনা শোধ করল, এবং আমরা এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস দ্ধারা অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করে থাকি।
 
 
সেনাপতি নামান
 
নামান, যিনি ২ রাজাবলি ৫ অধ্যায়ে উপস্থাপিত হয়েছেন, সিরিয়ায় মহান ও সম্মানিত সেনাধ্যক্ষ ছিলেন যিনি দেশকে এর শক্র থেকে রক্ষা করেছিলেন। তিনি ছিলেন একজন কুষ্ঠ রোগী যিনি অভিশাপের কারণে ভাগ্য ক্রমে সব কিছু হারাতে বসে ছিলেন। কিন্ত তিনি পরে এক সুন্দর সংবাদ শুনলেন যে তিনি এই অভিশাপ থেকে মুক্ত হতে পারেন। তাকে বলা হয়েছিল যে যদি তিনি ইস্রায়েল দেশের একজন ভাববাদীর বা ঈশ্বরের দাসের নিকটে যান তাহলে তিনি আরোগ্য হতে পারেন। যে এই খবরটা পরিবেশন করেছিলেন সে ছিল বন্দি হয়ে নীত একটি ছোট মেয়ে। সে বলল, “আহা ! শমরিয়ায় যে ভাববাদী আছেন তাহার সহিত যদি আমার প্রভুর সাক্ষাত হইতো, তবে তিনি তাঁহাকে কুষ্ঠ হইতে উদ্ধার করিতেন।” (২ রাজাবলী ৫:৩ )।
 তিনি এই সংবাদ বিশ্বাস করলেন এবং ইস্রায়েল দেশে গেলেন। যখন তিনি ইলিযসায়ের বাড়ির সামনে উপস্থিত হলেন; ইলিসায় একজন সংবাদবাহকের নিকট বলে পাঠালেন, “আপনি গিয়া সাত বার যর্দ্দনে স্নান করুন, আপনার নূতন মাংস হইবে, ও আপনি শুচি হইবেন”
( ২রাজাবলী ৫:১০ )। নামান কোন অলৌকিক ভাবে সুস্থ হওয়ার বিষয় ভেবেছিলেন কিন্তু সেরূপ কিছু না ঘঠায় ক্রুদ্ধ হয়ে নিজ দেশে ফিরে যেতে সিদ্ধান্ত নিলেন। যাহাহউক, তার যেকরের সাগ্রহে অনুরোধেরর ফলে, তিনি ইলিসায়ের বাধ্য হলেন, এবং যর্দ্দন নদীতে গিয়ে সাত বার ডুবদিলেন। তাহাতে ক্ষুদ্র বালকের ন্যায় তাঁহার নূতন মাংস হইল, ও তিনি শুচি হইলেন।
 ঠিক একই ভাবে, আমরা জ্ঞাত হই যে আমাদের সমস্ত পাপের ক্ষমা হয়েছে আমরা অবশ্যই আমাদের নিজেদের চিন্তা-ভাবনা পিরত্যাগ করব এবং যা বাইবেল লিখিত আছে তাই গ্রহণ করব। তাহলে আমাদের সুন্দর পবিত্রতা দেওয়া হবে। যিনি রক্ষা পেতে চান তাকে অবশ্যই ঈশ্বরের বাক্য পালন করতে হবে এবং তাঁহাতে সম্পূর্ণ ভাবে বিশ্বাস করতে হবে। বাইবেল বলে যে জগতের সমস্ত পাপ যীশুর বাপ্তিস্ম ও রক্তের সুসমাচার দ্বারা ধৌত হয়েছে। আমরা অবশ্য অবাধ্য নামানের মত একই চিন্তা করব না। আমরা জল ও আত্মার সুসমাচার ছাড়া আমাদের পাপ থেকে পরিষ্কৃত হতে পারি না। সে কারণে, আমাদের সমস্ত পাপ ক্ষমা করা হয়েছে, আমরা অবশ্যই জল ও আত্মার সুন্দর সুসমাচার বিশ্বাস করব। ঠিক যেমন নামান সাত বার জলে ডুব দিয়ে মুক্ত হল , আমরা বিশ্বাস করি যে , আমরা যীশুর বাপ্তিস্ম, ক্রুশীয়মৃত্যু, ও পুনরুত্থানের সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস দ্বারা আমাদের পাপ থেকে পরিষ্কৃত হতে পারব । আমরা ঠিক এভাবেই অবশ্যই এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করব।
 যর্দ্দন নদীর এই অলৌকিক ঘটনা আমাদের সমস্ত বংশধরদের। পবিত্রতা উপহার দিয়েছে যা সমস্ত পাপের প্রবাহ ছিন্ন ও বিচার সমাপ্ত করেছে। সমস্ত মানবতা এদোন উদ্যান থেকে প্রতারিত বহিষ্কৃত হয়েছিল কারণ আদম ও হবা শয়তান দ্বারা প্রতারিত হয়ে পাপ করেছিল। যাহাহউক, যর্দ্দনের ঘটনা ছিল সুন্দর সুসমাচার যা মানব জাতিকে এদোন উদ্যানে ফিরে যেতে চালিত করে।
 
 
যর্দ্দন নদীর ঘটনা
 
বাইবেল সুন্দর সুসমাচার সংরক্ষন করে যা হল যীশু যর্দ্দনে সমস্ত পাপ নিয়ে গিয়েছেন। “এখন সম্মত হও, কেননা এই রূপে সমস্ত ধার্মিকতা সাধন করা আমাদের পক্ষে উপযুক্ত” ( মথি ৩:১৫ )। বাইবেল বলে যে যীশু যখন যর্দ্দন নদীতে বাপ্তাইজিত হলেন তখন সমস্ত পাপ তাঁর উপরে বর্ত্তালো। অন্য দিকে যীশুর বাপ্তিস্ম এমন একটি ঘটনা যা পাপের শৃঙ্খল কেটে দিল যা সমস্ত মানব জাতিকে আবদ্ধ করে রেখেছিল। এই ভাবেই যীশু পাপ সমাপ্ত করলেন এবং আমাদিগকে তাঁর ক্রুশীয় রক্ত দ্বারা পরিত্রাণ উপহার দিলেন।
 যর্দ্দন ছিল বাপ্তিস্মের নদী যা আমাদের সমস্ত পাপ পরিষ্কৃত করেছে। আমরা ঈশ্বরের ব্যবস্থা পূর্ণতা সাধন করতে সমর্থ হয়েছিলাম,“পাপের বেতন মৃত্যু” (রোমীয় ৬:২৩), কারণ যীশু যর্দ্দন নদীতে বাপ্তইজিত হয়ে এবং ক্রুশে মরে পাপের দেনা শোধ করেছেন। এই হল সুন্দর সুসমাচার যা আমাদের প্রভু মানব জাতির জন্য দিয়েছেন।
 মাবন জাতির সমস্ত পাপ আদম থেকেই চলে আসছে কিন্তু যর্দ্দন নদীতে যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর ক্রুশীয় রক্তে তা সম্পূর্ণ রূপেই থেমে গেছে। যীশুর বাপ্তিস্মে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করলে কোন পাপ থাকে না। ইহা কেমন পবিত্র ও সুন্দর সংবাদ। আমরা, এই সুন্দর সুসমাচারে বিশাস দ্বারা, পাপের ঘূর্ণয়মান প্রবাহ থেকে রক্ষা পেয়েছি, আমাদের সমস্ত পাপ থেকে বিশুদ্ধ হই এবং ঈশ্বরের অঙ্গীকৃত ব্যবস্থাতে পবিত্ৰীকৃত হই। এইরূপে যীশুর বাপ্তিস্ম ও ক্রুশীয় রক্তের সুসমাচার যা সমস্ত মানব জাতিকে রক্ষা করে। আমরা সত্যমতই ইহাতে বিশ্বাস করি, “আর যাহা কিছু বিশ্বাসমূলক নয়, তাহাই পাপ” ( রোমীয় ১৪:২৩ ), ইহা প্রভু বলেন। অধিকন্তু, যখন আমরা এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করি, আমরা পবিত্র হই। যোহনের দ্বারা বাপ্তাইজিত হয়ে যীশুর উপর সমস্ত পাপ স্থানান্তরিত হওয়া সত্ত্বেও কি এখনো আপনার অন্তরে পাপ আছে? যীশু জগতের সমস্ত পাপ তুলে নিয়েছেন। বাইবেলে যা লিখিত হয়েছে আপনার তা গ্রহণ করা আবশ্যক। কেবল মাত্র যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর ক্রুশীয় রক্তের সুসমাচার আপনার সমস্ত পাপ মুছে দিতে পারে এবং আপনাকে মৃত্যু ও অন্য সমস্ত অভিশাপ থেকে নিবারণ করে। বাপ্তাইজিত অর্থ “ধৌত হওয়া, অভিভূত হওয়া, কবরস্থ হওয়া, অতিক্রম করা, স্থানান্তরিত হওয়া।”
 যীশু দ্বারা প্রদত্ত সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস দ্বারা সমস্ত মানব জাতি তাদের পাপ থেকে ক্ষমা পেতে পারে। এই জন্য যীশু নিজেকে “স্বর্গের পথ” বলেছেন, আমরা তাঁহাতে বিশ্বাস করে স্বর্গে প্রবশে করতে পারি এবং অনন্ত জীবন লাভ করতে পারি। তিনি আমাদের প্রভু, যিনি আমাদিগকে অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা দিয়েছেন। আমরা তাঁর বাপ্তিস্মে ও রক্তে বিশ্বাস করে আমাদের পাপের সকল বিচার থেকে নিষ্কৃত পাই।
 অভিশাপ শেষ হল এবং নদী শুকিয়ে গেল কারণ নিয়ম সিন্দুর বাহী যাজকেরা বিশ্বাসে তাদের পা পানিতে ডুবিয়ে রেখেছিল। ঈশ্বর যা পরিকল্পনা করেছিলেন, এবং যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর রক্ত এই পরিকল্পনার শুনান্বিত হল, ইহা কি সুন্দর সুসমাচার।এই হল পরিত্রাণের ব্যসস্থা এবং ইহা ব্যাতীত আমাদের পরিত্রাণ ছিল অসম্ভব, যারা এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করে এখন তারা যর্দ্দন নদী পার হতে পারে এবং কনানে প্রবেশ করতে পারে। জল সম্পূর্ণ শুকিয়ে যাওয়ার অর্থ জগতের সমস্ত পাপ যীশুতে স্থানান্তরিত হল এবং তিনি আমাদের জন্য বিচারিত হলেন।এই সুসমাচার যা আমাদিগকে অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা দেয় ।
 ঈশ্বর যিনি মানব জাতি সৃষ্টি করেছিলেন তিনি জ্ঞাত আছেন যে ব্যক্তির গড় আই কিউ কেবল মাত্র ১১০ থেকে ১৩০ পয়েন্ট। সে কারণে তিনি পবিত্র আত্মা গ্রহণের এই সত্যকে তিনি জটিল করতে পারেন নাই। ঈশ্বর যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর ক্রুশীয় রক্ত দিয়ে তাদের সমস্ত পাপ তুলে নিয়েছেন। তিনি জল ও পবিত্র আত্মার সুসমাচাররে বিশ্বাস দ্বারা পবিত্র আত্মা গ্রহণ সম্ভব করেছেন। সুতরাং তাদের মধ্যে সকলে ইহা জানে। আপনি এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস দ্বারা অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা উপলব্ধি করতে সক্ষম হবেন।
 বাইবেলে যা লিখিত আছে সেই অনুসারে, আমরা অনুতাপের প্রার্থনা দ্বারা পবিত্র আত্মা গ্রহণ করতে পারি না। লোকেরা ভাবে যে যখন তারা অনেক প্রার্থনা উৎস্বর্গ করে তখন পবিত্র আত্মা তাদের অনেক কিছু দিয়ে থাকেন। কিন্তু ইহা সাধারণ কথা সত্য নয়। পবিত্র আত্মা তাদেরকেই দেয়া হয় যারা সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করে; এবং হয়া তাদেরকে ঈশ্বরের সন্তান তৈরী করে। উহা বলে, যে ব্যক্তি ঈশ্বরের সন্তান হতে চেয়েছিল অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা তার জামীন হয়েছিল। ঈশ্বর তাদের পবিত্র আত্মা দেন যারা সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করে তাদের তাঁর সন্তান রূপে নিশ্চয়তা দেয় ?
 যদি লোকেরা যীশুতে বিশ্বাস করে কিন্তু এই সুসমাচার জ্ঞাত হয় না এবং বিশ্বাস করে না, তারা এই ঘটনায় দৃঢ় বিশ্বাস স্থাপন করতে পারে না যে তাদের পাপ তাঁর উপরে স্থানান্তরিত হয়েছে। সে কারণে, সমস্ত লোক অবশ্যই জানবে এবং বিশ্বাস করবে যে যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর ক্রুশীয় রক্তের সুন্দর সুসমাচার তাদের সমস্ত পাপ মুছে দিয়েছে।
 কে সাক্ষ্য দেয় যে যীশু জগতের সমস্ত পাপ তুলে নিয়েছে?
যোহন বাপ্তাইজক এই সাক্ষ্য দেন। কারণ তিনি যোহনের দ্ধারা বাপ্তাইজিত হয়েছিলেন এবং তিনি জগতের সমস্ত পাপ তুলে নিয়েছেন যা ঈশ্বর আমাদের পিতার পরিকল্পনা ছিল ( লেবীয় 8:৩-২১; ১৬:১-৩০ ) কে তাঁর পরিকল্পনা অনুসরন করেছিল? কে এই পরিকল্পনা চূড়ান্ত ভাবে পূর্ণতা সাধনে নিশ্চয়তা দিয়েছিলেন? পবিত্র আত্মা দিয়েছিল। ত্রিত্ব ঈশ্বর পাপের ক্ষমা পূর্ণতা সাধন করে যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর ক্রুশীয় রক্তের দ্বারা আমাদিগকে তাঁর সন্তান তৈরী করেন। পব্রিত আত্মা আমাদের মধ্যে বাস করেন এবং নিশ্চয়তা দেন যে কখন যীশু ঈশরের পরিকল্পনা র্পূণতা সাধন করেন তখন আমরা আমাদের সমস্ত পাপ থেকে রক্ষা পাই। এই জগতের সামনে জটিল সমস্যা কি? এবং আপনার চিন্তা কত এলোমেলো? তার নিজের চিন্তা-ভাবনা পরিত্যাগ না করা পর্যন্ত এই সুন্দর সুসমাচারে বিশ্বাস করতে পাবে না। আজকের খ্রীষ্ট ধর্মীয় মতবাদ হল অনেক লোক বিশ্বাস করে যে, 'আসল পাপ চলে গেছে, কিন্তু প্রকৃত পাপ অনুতাপের প্রার্থনা দ্বারা ক্ষমা হয়ে থাকে। যাহাহউক, ইহা পূর্ণ সত্য থেকে দূরবর্তী, হয়া বস্তুত ভ্রান্ত সুসমাচার। যদি আপনি ইহা বিশ্বাস করেন, আপনি বাইবেলের প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত কিছুই বুজতে পারবেন না, কালে কালে যীশুতে চলবার পথে আপনার অভিজ্ঞতা অধিকতর বিপদসংকুল হবে। ফলে খ্রীষ্টিয়ানদের মধ্যে অনেকেই ভিন্ন সুসমাচার ও ভিন্ন ঈশ্বরে বিশ্বাস করছে।’
 কিছু কিছু লোক বলছে তারা “প্রার্থনা দ্বারা অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করেছে। কিন্তু ইহা যুক্তিসংগত মনে হলেও বাইবেল বলে যে পবিত্র আত্মা কপোতের যীশুর উপরে নেমে এসেছিলেন যখন তিনি বাপ্তাইজিত হয়ে জল থেকে উঠে আসলেন। এই হল সত্য সুসমাচারে বিশ্বাস করে পবিত্র আত্মা তাদের ওপরে নেমে আসে।”
 তাছাড়া কোন কোন লোক বলে তারা অনুতাপের প্রার্থনা উৎসর্গ করে পবিত্র আত্মা গ্রহণ করেছে। যখন লোকেরা সাধারণ ভাবে পাপের জন্য ক্ষমা চায় তখন কি তাদের পবিত্র আত্মা দেওয়া হয় ? ঈশ্বর ধৰ্ম্মৰ্ময়। তিনি তাদের উপর দয়া করেন বলে পবিত্র আত্মা আসে না। লোকেরা কত জোরে চিৎকার করল কিম্বা প্রার্থনা করল সে বিষয়ে নেমে আসতে পারে জানতেন না ? বাইবেল বলে যে, যীশু সুন্দর সুসমাচার কিছু লোকের জন্য ফাঁদ স্বরূপ ও বিঘ্ন স্বরূপ।
 যদি আপনি যোহনের দ্বারা যীশুর বাপ্তিস্মের রহস্য বুঝতে পারেন, তাহলে আপনি আপনার পাপ থেকে ক্ষমা পেতে পারেন এবং অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা পেতে পারেন। তিনি বাপ্তিস্ম, ক্রুশীয় মৃত্যু ও পুনরুত্থানের দ্বারা সমস্ত পাপীকে রক্ষা করেছেন। যীশু কর্ত্তৃক পাপের মোচন আমাদিগকে পরিত্রাণের ধার্মিকতার পথে নিয়ে যায়। তিনি সকল পাপীদের সত্য মুক্তিদাতা হয়েছেন এবং অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা নিশ্চয়তা দিয়েছেন।
 
 
কেবল যদি আপনি ইহাতে বিশ্বাস করেন!
 
ইহা পুরাতন নিয়মে চিরস্থায়ী আকারে সংরক্ষিত আছে যে যখন যাজকেরা যর্দ্দনে তাদের পা ডুবালেন, নদী শুষ্ক ভূমিতে পরিণত হল।পানি থামিয়ে দেওয়া ছিল এবং এক অদ্ভুত অলৌকিক ঘটনা ঘটেছিল। নদী শুষ্ক ভূমিতে পরিণত হওয়ার মত অধিক অবিশ্বাস্য আর কি হতে পারে। এই ঘটনা ঈশ্বরের পরিত্রাণের নিশ্চয়তা প্রদান করে; যা আমাদিগকে যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর ক্রুশীয় রক্তের মাধ্যমে পাপ মুক্তির পথে চালিত করে। শুষ্ক ভূমি পথের প্রতিনিধি করে যা যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর রক্তে ধন্যবাদ দিতে দিতে জগতের সমস্ত পাপ ক্ষমা হয়েছে। আদম থেকে মানব জাতির সমস্ত পাপ চলে গেছে। কিন্তু যীশুর বাপ্তিস্মের সঙ্গে সঙ্গে বিচারের অভিশাপ শেষ হয়ে গেছে। এখন, আমাদের সকলের প্রয়োজন বিশ্বাসে পাপের ক্ষমা পাওয়া ও অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণ করা। আপনি কি সুন্দর সত্যে বিশ্বাস করেন যা যীশু যর্দ্দন নদীতে তাঁর বাপ্তিস্মের মাধ্যমে আপনার সকল পাপ তুলে নিয়েছেন?
 আপনার বিশ্বাস করা আবশ্যক যে যীশু জগতের সমস্ত পাপ তুলে নিতে বাপ্তাইজিত হয়েছিলেন। তাছাড়া, আপনার জানা বুঝা ও বিশ্বাস করা আবশ্যক যে তাঁর বাপ্তিস্ম কত গুরুত্বপূর্ণ ছিল। যদি যাজকগণ যর্দ্দনে প্রবেশ না করতেন তাহলে ইস্রায়েল জাতি কনানে প্রবেশ করতে সমর্থ হতেন না। যর্দ্দন পার হয়ে প্রথম পদক্ষেপ ছিল। কনানে প্রবেশ করা। অতএব, যখন আমরা নিয়ম সিন্দুক নিয়ে নদী পার হই আমরা কনানে প্রবেশ করতে পারি। ইহা আমাদিগকে শিক্ষা দেয় যে, জল ও আত্মার সুসমাচার বিশ্বাস দ্ধারা আমরা পাপের ক্ষমা পেতে পারি। বাইবেল বলে যে যীশুর বাপ্তিস্ম ছিল ঈশ্বরের কাজ। ইহা যাজকদের সঙ্গে সম্বন্ধ স্থাপন করেছিল। ঠিক যখন যাজক জলে পা ডুবালেন তখনই যর্দ্দন নদীর জল শুকিয়ে গেল। আমরা পৃথিবীর লোকেরা এই সুসমাচারে বিশ্বাস দ্বারা তাদের পাপ থেকে রক্ষা করতে পারব। অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা এই সুন্দর সুসমাচারের ওপর ভিত্তি করে বিশ্বাসে রক্ষা পেতে পারি। যীশুর বাপ্তিস্ম ও তাঁর পবিত্র আত্মা গ্রহণে চালিত করে। জল ও আত্মার এই সুসমাচার অন্তরে বাসকারী পবিত্র আত্মা গ্রহণের জন্য অপরিহার্য্য।